999

৯৯৯ এ ফোন কলে পথ হারা বাকপ্রতিবন্ধী বৃদ্ধাকে উদ্ধার

তথ্যপ্রযুক্তি দিনকাল বাংলাদেশ
৯৯৯ এ ফোন কলে পথ হারা বাকপ্রতিবন্ধী বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে পরিবারের কাছে বুঝিয়ে দিল পুলিশ
৯৯৯ এ এক পথচারী কলারের ফোন কলে পথ হারিয়ে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরতে থাকা এক বাক প্রতিবন্ধী বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে পরিবারের কাছে বুঝিয়ে দিয়েছে ঢাকার আদাবর থানার পুলিশ।
বুধবার ২০ জানুয়ারী,২০২১ সন্ধ্যা পৌণে সাতটায় বাংলাদেশ পুলিশ পরিচালিত ‘জাতীয় জরুরী সেবা ৯৯৯’নম্বরে ঢাকার আদাবর থানাধীন আদাবর বাজার পানির পাম্প থেকে এক জন পথচারী ফোন করে জানান সেখানে এক বৃদ্ধা মহিলা পথ হারিয়ে উদ্দেশ্যহীন ঘোরাঘুরি করছেন, বৃদ্ধা একজন বাকপ্রতিবন্ধী ঠিক মতো কোন কিছু বলতে ও পারছেনা। বৃদ্ধা অষ্পষ্ট উচ্চারণে জানিয়েছেন তিনি তার স্বামীকে নিয়ে ঢাকায় একটি হাসপাতালে এসেছেন চিকিৎসার জন্য।
৯৯৯ তাৎক্ষণিকভভাবে আদাবর থানার ডিউটি অফিসারের কথা বলিয়ে দেয়। সংবাদ পেয়ে আদাবর থানার একটি পেট্রোল টীম দ্রুত ঘটনাস্থলে যায়।পরে আদাবর থানার এ এস আই এহসানুল হক ৯৯৯ কে ফোনে জানান তিনি বৃদ্ধাকে তাদের পেট্রোল গাড়ীতে করে নিয়ে প্রথমে জাতীয় হৃদরোগ ইনষ্টিউটে গিয়ে খোঁজ খবর করেন কিন্তু সেখানে বৃদ্ধার স্বামীকে পাওয়া যায়নি। তারপর তারা বৃদ্ধাকে থানায় নিয়ে যান। পরে বৃদ্ধার অষ্পষ্ট উচ্চারণের কথা বার্তা থেকে অনেক সময় নিয়ে বৃদ্ধার স্থায়ী ঠিকানা জানা যায় মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর থানাধীন ইসলামপুর গ্রাম।

 

তারপর আদাবর থানার ওসি জনাব কাজী সাইদুর রহমান সিঙ্গাইর থানায় কথা বলেন এবং বৃদ্ধার গ্রামের ইউনিয়ন পরিষদ মেম্বারদের ফোন নম্বর সংগ্রহ করেন। দুইজন মেম্বারের সাথে কথা বলার পর একজন মেম্বার চিনতে না পারলেও দ্বিতীয়জন শেষ পর্যন্ত বৃদ্ধাকে চিনতে পারেন এবং বাড়ীর ঠিকানা নিশ্চিত হওয়া যায়।
থানা থেকে সংবাদ প্রাপ্ত হয়ে বৃদ্ধার আত্মীয় স্বজন রাত বারোটার দিকে থানায় এসে পৌঁছালে বৃদ্ধাকে তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। বৃদ্ধার নাম মনোয়ারা আক্তার বাতাসী (৬০)। জানা যায় তার স্বামী হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ায় মাণিকগঞ্জ থেকে এনে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে বৃদ্ধা তার ভাতিজার সাথে কিছু জিনিষ পত্র কিনতে বের হয়ে সকাল ১১ টার দিকে পথ হারিয়ে ফেলেন। এরপর সারাদিন ঘুরতে ঘুরতে তিনি আদাবর বাজার চলে যান।সেখান থেকে পথচারীর ফোন কলে তাকে উদ্ধার করে পুলিশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.