খোলাবাজারে ডলার ১০০ টাকার ওপরে- ডলার নিয়ে ভয়াবহ কারসাজি!

দিনকাল বাংলাদেশ

খোলাবাজারে ডলার ১০০ টাকার ওপরে, যেখানে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্ধারিত দর ৮৭ টাকা ৫০ পয়সা। এ দর নির্ধারণ করেই বাংলাদেশ ব্যাংক ডলার সরবরাহ করছে। অনেকে অভিযোগ করেছেন, সিন্ডিকেট করে ডলারের দাম বাড়ানো হচ্ছে। ব্যাংক ও কার্ব মার্কেট সংশ্লিষ্টরা ব্যবসা করার জন্য ডলারের দর বাড়াচ্ছেন। কিছু ব্যাংক ডলার বিক্রি করে বিশাল অঙ্কের মুনাফা করছে।

ব্যাংকগুলো বাস্তবে এলসি খুলতে ডলারে দর রাখছে ৯৩-৯৪ টাকা। অর্থাৎ প্রতি ডলারে ব্যাংকগুলোর মুনাফা হচ্ছে ৫-৬ টাকা। খোলাবাজারে বিক্রি হচ্ছে ৯৭-৯৮ টাকায়। এখানে মুনাফা করছে ৯-১০ টাকা। এজন্য এ খাতের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিতে স্থায়ী এবং কার্যকর সমাধানের জন্য নীতির জায়গাটা আগে ঠিক করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

ডলার নিয়ে ভয়াবহ কারসাজির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এর সঙ্গে কিছু মানিচেঞ্জার প্রতিষ্ঠান, কিছুসংখ্যক অসৎ ব্যবসায়ী ও কয়েকটি ব্যাংক জড়িত বলে ধারণা করা হচ্ছে। শুধু তাই নয়, অসৎ ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে ডলারের বাজারে কৃত্রিম সংকট তৈরি করেছেন এমন ধারণাও করা হচ্ছে। এজন্য এসব প্রতিষ্ঠান, ব্যবসায়ী ও ব্যাংকের লেনদেনের প্রতি পর্যবেক্ষণ ও নজরদারি বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। অভিযোগ প্রমাণিত হলে কঠোর শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে এসব ব্যাংক, মানিচেঞ্জার ও ব্যবসায়ীকে। বাংলাদেশ ব্যাংকসূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

 

রপ্তানি আয়ের তুলনায় আমদানি ব্যয় অনেক বেশি। সেজন্যই এ বাণিজ্য ঘাটতি তৈরি হয়েছে। অর্থনীতিবিদ ও বিশ্লেষকরা বলছেন, ডলারের দাম বেড়েছে এটা সত্যি। চাহিদার তুলনায় জোগানের ঘাটতি রয়েছে এও সত্যি। যার ফলে বাজারে ডলারের সংকট রয়েছে। কিন্তু এ সংকট আরও বেশি ঘনীভূত করা এবং কৃত্রিমভাবে দাম বাড়িয়ে বাজারে আতঙ্ক ছড়াচ্ছে কিছু অসৎ ব্যবসায়ী, কয়েকটি মানিচেঞ্জার প্রতিষ্ঠান।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ডলারের বাজার নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশ ব্যাংক সম্প্রতি যেসব সিদ্ধান্ত নিয়েছে সেগুলো সময়োপযোগী। একই বিলাসী পণ্যের আমদানি কিছুদিন বন্ধ রাখা, গাড়ি আমদানির প্রতি নিয়ন্ত্রণ ও আরোপ আমদানি পণ্যের অভ্যন্তরীণ উৎপাদন বাড়ানোর প্রতি গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে। একইভাবে কার্ব মার্কেট (খোলাবাজার) ব্যাংকের মধ্যে ডলারের রেটের যে বিশাল ব্যবধান রয়েছে তা কমিয়ে আনার কোনো বিকল্প নেই। মানিচেঞ্জার প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্যও একটা নির্দিষ্ট রেট ঠিক করে দেওয়া উচিত। মানিচেঞ্জার প্রতিষ্ঠানগুলো ডলার মজুদ করে কারসাজির মাধ্যমে কৃত্রিম সংকট তৈরি করছে কি না সে বিষয়েও  বাংলাদেশ ব্যাংকের নজরদারি বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। এদিকে গতকালও ডলারের বাজার স্বাভাবিক হয়নি। কার্ব মার্কেটে গতকালও আগের দিনের মতোই ১০০ টাকার ওপরে ডলার বিক্রি হয়েছে। অনেক ব্যাংক অধিক রেটে এলসি খুলে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে কম রেট দেখিয়ে এলসির রিপোর্ট দিয়ে তথ্য গোপন করছে। যা ডলারের বাজারে নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। ডলার সংকটের কারণে সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়েছেন মধ্যমানের ব্যবসায়ীরা। যারা মূলত ব্যাংকের ওপরই নির্ভরশীল। কিন্তু রেট বেশি হওয়ায় তাদের আমদানি পণ্যের ক্রয়মূল্য বেড়ে যাবে। অথচ সেই বাড়তি মূল্যে বাজারে পণ্য বিক্রি করা কঠিন হবে। এজন্য তারা একদিকে বাড়তি মূল্যে এলসি খুলতে পারছেন না আবার এলসি না খুললে ব্যবসাই বন্ধ হয়ে যেতে পারে এমন আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন। ফলে কোনো কোনো ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীরা ৯৭-৯৮ টাকা রেটে এলসি খুলতে বাধ্য হচ্ছেন। এতে তাদের আমদানি পণ্যের দামও বেড়ে যাচ্ছে; যা আবার সামগ্রিকভাবে পণ্যের বাজারে প্রভাব ফেলছে। এতে মূল্যস্ফীতিও বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। এদিকে ডলারের দাম বৃদ্ধির কারণে হুন্ডি বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। এতে দেশের অর্থনীতিতে সংকট আরও বেড়ে যেতে পারে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশ ব্যাংককে আরও কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন অর্থনীতিবিদরা। বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান বলেছেন, ‘কার্ব মার্কেটটা খুবই ছোট। কিন্তু এখানে হিউজ লেনদেন হয়। কেননা দীর্ঘ আড়াই বছরের করোনা মহামারির পর মানুষ স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসেছে। এতে মানুষের বিদেশ ভ্রমণ বেড়েছে। ভ্রমণের জন্য বেশির ভাগই খোলাবাজার থেকেই ডলার কেনেন। তবে মূল মার্কেট হচ্ছে ব্যাংক। এ বাজারেও স্বচ্ছতার ঘাটতি থাকতে পারে।’ এখানে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি প্রতিষ্ঠা করতে বাংলাদেশ ব্যাংককে আরও কঠোর হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন সাবেক এই গভর্নর। এদিকে চলমান ডলার সংকট নিয়ে দেশের অর্থনীতিবিদরা ভিন্ন ভিন্ন মত দিয়েছেন। কেউ কেউ ডলারের দাম বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন, আবার কেউ কেউ এর বিরোধিতা করেছেন। মঙ্গলবার অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের সঙ্গে অনলাইনে অনুষ্ঠিত প্রাকবাজেট আলোচনায় মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে সরকারকে কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার কথা বলেছেন অর্থনীতিবিদরা। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেন তাঁরা। ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইদুজ্জামান, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ফরাসউদ্দিন আহমেদ, বর্তমান গভর্নর ফজলে কবির, পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের চেয়ারম্যান জায়েদী সাত্তার, অর্থনীতিবিদ এম এম আকাশ, সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) বিশেষ ফেলো মোস্তাফিজুর রহমান, অর্থনীতিবিদ নাজনীন আহমেদ, সানেমের নির্বাহী পরিচালক সেলিম রায়হান প্রমুখ। এদিকে করোনা পরিস্থিতি উন্নতি হওয়ার পর মূলধনী যন্ত্রপাতি, শিল্পের কাঁচামাল, খাদ্যপণ্য, জ্বালানি তেল, ভোজ্য তেলসহ সব পণ্যের আমদানি বেড়েছে। চাহিদা বাড়ায় চলতি অর্থবছরের পণ্য আমদানি বেড়েছে প্রায় ৫০ শতাংশ। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যানুযায়ী বিভিন্ন পণ্যের এলসি বেড়েছে প্রায় ৪৬ শতাংশ। ফলে আমদানিতে ডলারের চাহিদা বেড়েছে। ডলারের যে পরিমাণ চাহিদা বিপরীতে ডলার আহরণের উৎস সে অনুযায়ী হয়নি। যেখানে আমদানি বেড়েছে ৫০ শতাংশের কাছাকাছি, রপ্তানি সেখানে ১৫ থেকে ২০ শতাংশ বেড়েছে। অন্যদিকে প্রতি বছর প্রায় ২ বিলিয়ন ডলার রেমিট্যান্স হিসেবে প্রবাসীরা পাঠালেও এ বছর সে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হচ্ছে না। সাত-আট মাস ধরে প্রতি মাসেই রেমিট্যান্স প্রবাহ কমছে। ফলে চাহিদা অনুযায়ী ডলার পাচ্ছে না বাংলাদেশ। আবার এর সুযোগও কাজে লাগাচ্ছে সিন্ডিকেট চক্র। বাজারে সত্যিকারের সংকট কাজে লাগিয়ে রেট বাড়াতে ডলার থাকলেও তা ধরে রাখছে মানিচেঞ্জার প্রতিষ্ঠানগুলো। এমনকি কোনো কোনো ব্যাংক নিজেদের স্বার্থে ব্যবসায়ীদের সংকটের অজুহাত দেখিয়ে বেশি রেটে এলসি খুলতে বাধ্য করছে।

সূত্র: বিডিপ্রতিদিন

Leave a Reply

Your email address will not be published.