ছয় দিনে ১৭ হাজার ট্যাংকবিধ্বংসী অস্ত্র ইউক্রেনে পৌঁছেছে সামরিক সহায়তা হিসাবে।

আন্তর্জাতিক দিনকাল

যমুনা বাংলা ওয়েব ডেস্কঃ সরাসরি রণাঙ্গনে না নেমে যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা মিত্ররা রাশিয়ার আগ্রাসনের কবলে পড়া ইউক্রেনকে সশস্ত্র করে তোলার চেষ্টা করে যাচ্ছে নানাভাবে। রবিবার ভোরে এস্তোনিয়া থেকে একটি আন্তোনভ এএন-১২৪ উড়োজাহাজে রাইফেল, বুলেট ও অন্যান্য অস্ত্রের একটি চালান ইউক্রেনের সেনাদের জন্য পাঠানো হয়েছে।

নিউ ইয়র্ক টাইমস লিখেছে, ইউক্রেনের বিমানবাহিনীর এই আন্তোনভ বিমান স্নায়ুযুদ্ধের সময়কার একটি চমত্কার প্রকৌশলের নমুনা ছিল, যখন ইউক্রেন ছিল সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের অংশ। এখন ঐ উড়োজাহাজই রাশিয়ার বিরুদ্ধে ইউক্রেনের টিকে থাকার অন্যতম এক অনুসঙ্গে পরিণত হয়েছে।

আশঙ্কা যে স্থল সীমান্ত দিয়ে সহায়তা পৌঁছানোর সুযোগ হয়তো দ্রুতই বন্ধ হয়ে যেতে পারে। তাই তারা দ্রুত ইউক্রেনীয়দের হাতে অস্ত্র তুলে দিতে চাইছে, যাতে তারা রুশ বাহিনীকে ঠেকিয়ে ইউক্রেনকে রক্ষা করতে পারে। নিউ ইয়র্ক টাইমস জানাচ্ছে, এক সপ্তাহের কম সময়ের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো জ্যাভেলিন ক্ষেপণাস্ত্রসহ ১৭ হাজারের বেশি ট্যাংকবিধ্বংসী অস্ত্র পোল্যান্ড ও রোমানিয়ার সীমান্ত দিয়ে ইউক্রেনে পৌঁছাতে পেরেছে। এসব অস্ত্র রাজধানী কিয়েভ এবং অন্য বড় শহরগুলোতেও পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। রুশ বাহিনী এ পর্যন্ত ইউক্রেনের অন্য অংশে অভিযান নিয়ে ব্যস্ত থাকায় অস্ত্র সরবরাহ পথে তারা বিঘ্ন সৃষ্টি করতে পারেনি। এসব অস্ত্র হচ্ছে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে দৃশ্যমান সহায়তা। এর বাইরেও পশ্চিমা সহায়তার পরিধি বিস্তৃত রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.